আপনার কি কখনো নিজেকে একা মনে হয়? জানুন একাকিত্ব দুর করার সহজ কিছু টিপস।

কাকীত্ব যখন আর পিছু ছাড়ে না,তখন সেটাকে উপভোগ করতে শিখতে হয়,একাকীত্বের সাথে নিজেকে মানিয়ে নিতে হয় ! 

এমনও দেখেছি চারপাশে অসংখ্য মানুষের ভিড়েও নিজেকে খুববেশী একা মনে হয়! 

আবার
কাছের মানুষগুলো যখন পাশে থেকেও অবহেলা করে,
অচেনা মানুষের মত আচরণ করে,
সেই একাকীত্বের ইমোশনটাও সহ্য করার মত ভয়ংকর মানসিক যন্ত্রণা আছে বলে মনে হয় না।

তবে এই বিশ্রী একাকীত্বকে উপভোগ ও দূর করার কিছু সুন্দর উপায় আছে.... 

১.একাকীত্বকে শুধুমাত্র একটা ব্যাড ফিলিংস হিসেবে মেনে নেওয়া, ফ্যাক্ট মনে না করা!

কেউ তোমাকে মোটেও ভালবাসে না,খুববেশী ঘৃণা করে,আপন থেকে পর হয়, কাছ থেকে দূরে যায় তারমানে তুমি লুজার না।
এইগুলা কোন লং লাস্টিং ফ্যাক্ট না,টেম্পোরারি ব্যাড ইমোশনের টনিক মাত্র!
একাকীত্বের উপর ওভার রিয়েক্ট না করে এই খারাপ লাগাকে স্বাভাবিকভাবে গ্রহণ করতে পারাই স্বার্থকতা!
কারণ আমাদের মস্তিষ্কটা
এমনভাবে ডিজাইন করা যেখানে খারাপ লাগা, ভাল লাগা,আপদ -বিপদ সব ফিলিংসেই এটেনশন দিতে বাধ্য!

২.বই পড়া!

মানুষের সবথেকে কাছের বন্ধু হলো বই।
খুব প্রিয় বন্ধু অবহেলা করতে পারে,বেঈমানী করতে পারে,কিন্তু ভাল মানের বই তোমাকে কখনই হতাশ করবে না!

৩.আত্মকেন্দ্রিক চিন্তা থেকে নিজেকে মুক্তি দেওয়া। সামগ্রিক দৃষ্টিকোণ থেকে কোন ঘটনাকে ব্যাখা করতে শেখা!

নিজের সুবিধার সাথে অন্যের সীমাবদ্ধতাকেও গুরুত্ব দিতে পারলে একাকীত্বের খারাপ লাগাকে মিনিমাইজ করা যায়।

৪.জীবনমুখী মুভি দেখা!

সিনেমার গল্প কাহিনী সব কাল্পনিক না, বাস্তব জীবনকে কল্পনায় সুন্দর করে তোলাই সিনেমা বানানোর আসল উদ্দেশ্য।
যে মুভিগুলো থেকে কিছু শেখার আছে, সেইগুলা দেখো,জীবনের জটিল সমীকরনের অনেক সমাধান খুঁজে পাবে!

৫.নিজের চিন্তা ভাবনার সাথে মিলে যায় এমন মানুষের সাথে বন্ধুত্ব করা এবং যাদের সাথে চিন্তায় পার্থক্য থাকে, তাদের সাথে মানিয়ে নেওয়া!

সবসময় চেষ্টা করা এমন মানুষের সঙ্গে সম্পর্ক গড়া, যার চিন্তা ভাবনা সুন্দর, যে ব্রড মাইন্ডেড।

৬.মিনিংফুল গান শুনা! 

শুধু বিনোদনের জন্য না, ভাল লাগার জন্য না, লিরিক্সের অর্থ বুঝে গান শুনতে চেষ্টা করা!
তোমার জীবনের এমন কোন ফিলিংস নাই, যার জন্য পৃথিবীতে গান সৃষ্টি হয় নাই।
গান শুধু প্রেম-ভালবাসায় সীমাবদ্ধ না, জীবনমুখী অসংখ্য গান আছে।
পছন্দ অনুযায়ী গান শুনো মন ভাল হতে বাধ্য......

৭.ভ্রমণে বের হওয়া! 

যথেষ্ঠ সময় সুযোগ, সামর্থ্য থাকলে ঘর থেকে বের হয়ে পড়া! প্রকৃতির খুব কাছে চলে যাওয়া। দর্শনীয় স্থান, সমুদ্র, পাহাড়, পর্বত, বন, জঙ্গলের সৌন্দর্যে ডুবে থাকো, নি:সঙ্গতা কেটে যাবে।

৮.নিজেকে ব্যস্ত রাখা!

মানুষ তখনই নি:সঙ্গতায় কষ্ট পায় যখন সে অবসর সময় কাটায়।
অবসর সময়ে তুমি যদি এমন কিছু মানুষের সাথে কাটানোর চেষ্টা করো,যারা তোমার মত সেইম এ্যাকিভিটিসে ইন্টারেস্টেড!
এটা হতে পারে বুক ক্লাব, স্পোর্টস ক্লাব, ফটোগ্রাফিক ক্লাব, রাইটার্স ক্লাব, জার্নালিস্ট ক্লাব, মিউজিক ক্লাব বা এমন কোন কাজ যেটা তোমার পছন্দের।

৯.নিজের প্রয়োজনে নিজেকে সাহায্য করা! 

তোমাকে একটা প্রশ্ন করি,
May be no one cares,
but are you one of them who don't really care about you?

এই জায়গায় হয়ত তোমার কিছুটা ভুল আছে!

নিজে ভাল থাকতে হলে আগে নিজেকেই ভালবাসতে হবে।
দীর্ঘমেয়াদী একাকীত্বের একটা সমস্যা হলো, কারো সাথে নতুনভাবে মিশতে ভয় করে, যদি আগের মানুষগুলোর মত, নতুন মানুষরা ছেড়ে চলে যায় বা অবহেলা করে!

এমনটি হওয়া স্বাভাবিক তবে, নিজের নেগেটিভ চিন্তাকে দূর করে নতুনভাবে ঘুরে দাঁড়ানো যায়!
জগতের সবথেকে কঠিন কাজ নিজেকে নিয়ে খুঁশি থাকা, যখন তুমি নিজে সদা খুঁশি একজন মানুষ, তোমার কাছে সেই আগের মানুষগুলো আবার ফিরে আসবে, না হয় নতুন কিছু সম্পর্ক হবে!

সবশেষে বলবো,

মানুষের কাছে চাওয়া-পাওয়ার হিসাবটা একেবারে কমিয়ে দাও!
Sometimes you have to forget what gone,appreciate what remains & look forward to what coming next.

You have to stand alone, just to make sure that you still can.

You can't be lonely,
if you have learned to love the person -you're alone with ;
if you ever think that,
who is going with you, when you are gone......!

লে,,,
সায়মন আলম শুভ

No comments

Powered by Blogger.